আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তালার কাছে শহীদদের মর্যাদা

<<>>
মিকদাদ ইবনু মা’আদী কারাব (রাঃ) হতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুল (সাঃ) বলেছেন , “আল্লাহর নিকট শহীদের জন্য ছয়টি বিশেষ পুরস্কার রয়েছে। (১) শরীরের রক্তের প্রথম ফোঁটা ঝরতেই তাকে মাফ করে দেওয়া হয় এবং প্রাণ বের হওয়ার প্রাক্কালে জান্নাতের মধ্যে তার অবস্থানের জায়গাটি চাক্ষুষ দেখানো হয়। (২) কবরের আযাব হতে তাঁকে নিরাপদে রাখা হয়। (৩) ক্বিয়ামতের দিনের ভয়াবহতা হতে তাঁকে নিরাপদে রাখা হয়। (৪) তার মাথায় সম্মান ও মর্যাদার মুকুট পরানো হবে । তার একটি ইয়াকুত দুনিয়া ও দুনিয়ার মধ্যে যা কিছু আছে সমস্ত কিছু হতে উত্তম। (৫) তার স্ত্রী হিসেবে বড় বড় চক্ষু বিশিষ্ট ৭২ জন হুর দেওয়া হবে। (৬) তার নিকট আত্মীয়দের মধ্য হতে ৭০ জনের জন্য সুপারিশ কবুল করা হবে।” (তিরমীযী, ইবনু মাজাহ, মিশকাত-হাদিস সহিহ)
<<>>
১- আমর ইবনু মুবরাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত । তিনি বলেন ,কুযা’আহর এক লোক রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এর কাছে বললো : আমি সাক্ষ্য দেই যে আল্লাহ্‌ ছাড়া কোন ইলাহ নেই। আর আপনি আল্লাহ্‌র রাসুল। আমি পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায় করি, রমযান মাসের সওম পালন করি ও রামাযানের তারাবীহ সালাত আদায় করি এবং যাকাত দেই। এ কথা শুনে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন : “যে ব্যাক্তি এর উপর মৃত্যু বরন করবে সে সিদ্দীকিগন ও শহীদগণের অন্তর্ভুক্ত”। (সহীহ আত-তারগীব)
২- রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন : “সৎ ও বিশ্বস্ত ব্যবসায়ী (ক্বিয়ামতের দিন) নবীগণ, সিদ্দীকগন ও শহীদ্গনের সাথে থাকবে”।(সহীহ আত-তারগীব)
৩- রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, নিশ্চয়ই তোমাদের পিছনে রয়েছে ধৈর্যের যুগ। সে সময়ে যে ব্যক্তি সুন্নাতকে শক্ত করে আঁকড়ে ধরে থাকবে, সে তোমাদের সময়ের ৫০ জন শহীদের নেকী পাবে।(ত্বাবারানী, আল-মুজামুল কাবীর হা/১০২৪০; নাসিরুদ্দিন আলবানী, সিলসিলাতুল আহাদিস আস সহিহাহ, সহিহুল জামে হা/২২৩৪)
[সুন্নাহর মধ্যেই সামগ্রিক কল্যাণ, রাসুল (সাঃ)-এর প্রত্যেকটা সুন্নাহ অনুসরণ করুন, শির্ক-বিদয়াত পরিত্যাগ করুন]
৪- আসমা বিনতে ইয়াযিদ ইবনে আস সাকান (রাঃ) নবী করিম (সাঃ) এর কাছে এলেন এবং বললেন : আমি আমার পিছনে রেখে আসা কিছু নারীর প্রতিনিধি হিসেবে এসেছি, তাদের বক্তব্যই আমার বক্তব্য। তারা সবাই আমার সাথে একমত। আর তা হল আল্লাহ্‌ আপনাকে নারী-পুরুষ সবার প্রতি রাসুল বানিয়ে পাঠিয়েছেন, আমরা আপনার প্রতি ঈমান এনেছি, আপনার অনুসরণ করেছি। আর আমরা হলাম নারী, পর্দানশীল, ঘরে বসে থাকি। পক্ষান্তরে পুরুষদের জুমার নামায আদায়, জানাযায় অংশগ্রহণ , জেহাদে যাওয়া, ইত্যাদির মাধ্যমে আমাদের উপর প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। তারা যখন জেহাদে বেরোয়, আমরা তাদের সম্পদ হেফাযত করি, তাদের সন্তানদের কে লালন পালন করি; তাহলে কি আমরা তাদের সাথে সওয়াবে ভাগ পাব?
রাসুলুল্লাহ (সাঃ) তাঁর সাহাবাদের প্রতি তাকালেন এবং বললেন, তোমরা কি এমন কোন নারীর কথা শুনেছ, যে তার দীনের ব্যাপারে প্রশ্ন করার বেলায় এই নারীর চেয়ে উত্তম? সাহাবীগন বললেন, না, হে আল্লাহ্‌র রাসুল ! অতঃপর রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেনঃ “যাও হে আসমা, তুমি তোমার পিছনে রেখে আসা মহিলাদেরকে জানিয়ে দাও, স্বামীর জন্য উত্তম স্ত্রী হওয়া, তার সন্তুষ্টি খুজে নেয়া ,তার সম্মতি অনুসরণ করা, যেগুলো উল্লেখ করেছ তার সমান” (মুসলিম)
৫- হযরত আবুল আওয়ার সাইদ ইবনে যায়েদ ইবনে আমর ইবনে নুফায়ল (আশারাহ মুবাশশিরাহ অর্থাৎ পৃথিবীতে জান্নাতের সুসংবাদ প্রাপ্ত ১০ জন সাহাবীর অন্তর্ভুক্ত) বর্ণনা করেন, আমি রাসুল (সাঃ)-কে বলতে শুনেছি, যে ব্যক্তি তার ধনমালের হেফাজতের কারণে নিহত হয়েছে সে শহিদ। আর যে ব্যক্তি নিজের জীবনের হেফাজতের কারণে নিহত হয়েছে সেও শহিদ। যে ব্যক্তি স্বীয় দ্বীনের হেফাজতকালে নিহত হয়েছে সেও শহিদ আর যে ব্যক্তি নিজের স্ত্রী-সন্তানদের হেফাজতকালে নিহত হয়েছে সেও শহিদ। (আবুদাউদ, তিরমিযি- ইমাম তিরমিযি বলেন হাদিসটি হাসান সহিহ)
৬- জাবির ইবনু আতীক (রাঃ) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “ আল্লাহ্‌র রাস্তায় যুদ্ধ করে শহীদ হয়েছে এরূপ ব্যক্তি ছাড়াও সাত শ্রেনীর লোক শহীদের মর্যাদা পাবে । (1) মহামারীতে মৃত ব্যাক্তি শহীদ (2)ডুবে মারা গেছে এরূপ ব্যাক্তি শহীদ (3) যাতুল জানব বা শ্বাসকষ্ট রোগে যে মারা গেছে সে শহীদ (4) পেটের রোগে মৃত ব্যাক্তি শহীদ (5) যে ব্যাক্তি পুড়ে মারা গেছে সে শহীদ (6) কোন কিছু চাপা পরে মারা যাওয়া ব্যাক্তি শহীদ এবং (7) প্রসব কষ্টে মৃত নারী শহীদ । ” (নাসঈ-হাদীস সহীহ, আলবানী)
৭- রাশেদ ইবন হুরাইশ থেকে বর্ণিত যে , রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ “ আল্লাহ্‌র পথে নিহত ব্যক্তি শহীদ, প্লেগরোগে মারা যাওয়া ব্যক্তি শহীদ, ডুবে মরে যাওয়া ব্যক্তি শহীদ, পেটের পীরায় মারা যাওয়া ব্যক্তি শহীদ, আগুনে পুরে মারা যাওয়া ব্যক্তি শহীদ, অসুস্থ অবস্থায় মৃত ব্যক্তি শহীদ এবং সন্তান প্রসবের পর নেফাস অবস্থায় মৃত মহিলা, তার সন্তান ভুমিষ্ট হওয়ার কারনে সে জান্নাতে চলে যায় ”।(আহমাদ, আলবানী হাদিসটি উত্তম বলেছেন)

Advertisements
Categories: Uncategorized | Leave a comment

Post navigation

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

Blog at WordPress.com.

%d bloggers like this: