বিশিষ্ট ফকিহগণের দৃষ্টিতে মিলাদুন্নবী পালন করার হাকীকত

আপনাদের খেদমতে আমার বিনীতভাবে অনুরোধ, এ লেখার প্রত্যেকটি স্তবক পড়বেন আর বাস্তবতা উপলব্ধি করবেন এবং নানা কুসংস্কারাচ্ছন্য সমাজ সংস্কারে উদ্যোগী হবেন। আমরাও আছি আপনার পার্শ্বে। অনেকে প্রশ্ন ছুড়ে দেন যে, “প্রচলিত মিলাদুন্নবী উদযাপন” কেন বিদয়াত?
আমাদের জবাব –
মীলাদ এর আভিধানিক অর্থ জন্ম ,জন্মকাল ও জন্মতারিখ। পরিভাষায় মীলাদ বা মীলাদ মাহফিল বলতে বোঝায় রাসূল সা. এর জন্ম বৃত্তান্ত নিয়ে আলোচনা বা জন্ম বৃত্তান্ত নিয়ে আলোচনার মজলিস। তবে আমাদের দেশের নেক ছূরতে জঘন্যতম কুসংস্কার এ প্রচলিত মীলাদ মাহফিল বলতে সাধারণতঃ বোঝায় ঐ সব অনুষ্ঠান , যেখানে মওজূ’ রেওয়ায়েত সম্বলিত তাওয়ালূদ পাঠ করা হয় , রাসূল সা. এর প্রশংসামূলক বিভিন্ন কাসীদা পাঠ করা হয় , ও সমস্বরে দুরূদ শরীফ পাঠ করা হয় । অনেক স্থানে দুরূদ পাঠ করার সময় রাসূল সা. মজলিসে হাজির- নাজির হয়ে যান এই বিশ্বাসে কেয়ামও করা হয়। এসব করা হলে রাসূল সা. এর জন্ম বৃত্তান্ত নিয়ে আলোচনা হোক বা না হোক সেটাকে মীলাদ মাহফিল মনে করা হয়। আর এসব না হলে অর্থাৎ , তাওয়ালূদ পাঠ না হলে , সমস্বরে দুরূদ পাঠ না হলে সেটাকে মীলাদ মনে করা হয়না , চাই সে মজলিসে রাসূল সা. এর আলোচনা করা হোক বা না হোক। তাই প্রচলিত মীলাদ-মাহফিল আর সত্যিকার পারিভাষিক মীলাদ-মাহফিল তথা নবী কারীম সা. এর জন্ম বৃত্তান্ত নিয়ে আলোচনার মাহফিল আমাদের সমাজে দুটি ভিন্ন ভিন্ন রূপ পরিগ্রহ করেছে।
বিশিষ্ট ফকিহগণের দৃষ্টিতে নেক ছূরতে জঘন্যতম কুসংস্কার এ মিলাদুন্নবী পালন জঘন্যতম বিদয়াত হওয়ার দলিল –
১।
ইমাম সাখাবী রহঃ বলেন ان عمل المولد الشريف لم ينقل عن احد من السلف الصالح في القرون الثلاثة الفاضلة و انما حدث بعدها و قال و اول من احدثه صاحب اربل الملك مظفر الدين ابو سعيد كوكيري.
অর্থাৎ মিলাদুন্নবীর আমল সর্বোত্তম তিন যুগের সালফে সালেহীনের কোনো একজন হতেও বর্ণিত নয়, বরং পরবর্তী যুগে আবিস্কৃত। তিনি বলেন, সর্বপ্রথম যিনি তা আবিস্কার করেন তিনি হলেন আরবলের অধিকারী বাদশাহ মুজাফফর উদ্দিন আবু সাঈদ কুকুরী।
{আল-বালাগুল মুবীন পৃ ৪}।
২।
প্রখ্যাত আলেম আল্লাম তাজুদ্দীন ফাকেহানী রহঃ লিখেছেন لا اعلم لهذا المولد اصلا في كتاب و سنة و لا ينقل عمله عن احد من العلماء الائمة الذين هم القدوة في الدين المتمسكون باثار المتقدمين بل هو بدعة احدثه البطالون و شهوة نفس اعتني بها الاكالون بدليل انا ادرنا عليه الاحكام الخمسة فقلنا ان يكون واجبا او مندوبا او مباحا او مكروها او حراما و ليس بواجب اجماعا و لا مندوبا لان حقيقة المندوب ما طلبه الشرع من غير ذم علي تركه و هذا لم يأذن فيه الشرع و لا فعله الصحابة و التابعون المتدينون فيما علمت و هذا جوابي عنه بين يدي الله ان عنه سألت و لا جائز ان يكون مباحا لان الابتداع في الدين ليس بمباح باجماع المسلمين فلم يبق الا ان يكون مكروها او حراما الخ
অর্থাৎ এ মিলাদুন্নবী পালনের কোনো দলিল প্রমাণ কুরআন ও সুন্নাহে আছে বলে আমার জানা নেই।আর না তা ধর্মের ক্ষেত্রে অনুসরণীয় কোনো বিজ্ঞ ইমাম থেকে বর্ণিত, যাঁরা নিজেদের পূর্বসূরীদের পদাঙ্ক অনুসরণে অটল; বরং এটি একটি বিদয়াত। অকর্মা ধূর্তরাই এটা আবিস্কার করেছে, আর পেটুকরাই তা লুফে নিয়েছে।এটি বিদয়াত হওয়ার প্রমাণ এই যে, আমরা পাঁচ প্রকারের হুকুম চক্রে ঘুরিয়ে দেখলাম যে, তা ওয়াজিব, মুসতাহাব, মুবাহ, হারাম বা মাকরূহ এ সবের কোনটিতে পড়ে।
পক্ষান্তরে সকলের ঐক্যমতে তা ওয়াজিব আর মুসতাহাব কোনোটি নয়।কেননা মুস্তাহাব বলা হয় শরিয়তে যে কাজের প্রতি উৎসাহ দিয়েছে, তবে তা না করলে কোনো তিরস্কার নেই। পক্ষান্তরে শরিয়তে এর (মিলাদ পালন) প্রতি উৎসাহ দিয়েছে কিন্তু না করলে কোনো তিরস্কার নেই।পক্ষান্তরে শরীয়তে এর প্রতি উৎসাহ তো দেয়নি, অনুমতিও নেই।আর আমার জানা মতে ধর্মভীরু সাহাবায়ে কেরাম, তাবেয়ীনগণ উনারাও তা করেননি। আল্লাহ তায়ালার দরবারে আমাকে জিজ্ঞাস করা হলে সেখানেও আমার একই জবাব। আর মুবাহও হওয়ার সুযোগ নেই। কেননা ধর্মের মধ্যে বিদয়াতের কোনো স্থান নেই। এ ব্যাপারে সবাই একমত পোষণ করেছেন। সুতরাং এবার বাকি থাকল, তা হারাম হবে নাকি মাকরূহ হবে!”
{সূত্র আল-বালাগুল মুবীন পৃ ৪}।
৩।
আল্লামা ইবনে আমীর আল-হাজ্জ মালেকী রহঃ মুদখাল কিতাবে লিখেছেন, ﻭﻣﻦﺟﻤﻠﺔ ﻣﺎ ﺍﺣﺪﺛﻮﺍ
ﻣﻦ ﺍﻟﺒﺪﻉ ﻣﻊ ﺍﻋﺘﻘﺎﺩﻫﻢ ﺍﻥ ﺫﻟﻚ ﻣﻦ ﺍﻛﺒﺮ
ﺍﻟﻌﺒﺎﺩﺍﺕ ﻭﺍﻇﻬﺎﺭ ﺍﻟﺸﻌﺎﺋﺮ ﻣﺎ ﻳﻔﻌﻠﻮﻥ ﻓﻰ
ﺍﻟﺸﻬﺮ ﺍﻟﺮﺑﻴﻊ ﺍﻻﻭﻝ ﻣﻦ ﺍﻟﻤﻮﻟﺪ ﻭﻗﺪ
ﺍﺣﺘﻮﻯ ﺫﻟﻚ ﻋﻠﻰ ﺑﺪﻉ ﻭﻣﺤﺮﻣﺎﺕ ﺍﻟﻰ ﺍﻥ
ﻗﺎﻝ ﻭﻫﺬﻩ ﺍﻟﻤﻔﺎﺳﺪ ﻣﺘﺮﺗﺒﺔ ﻋﻠﻰ ﻓﻌﻞ
ﺍﻟﻤﻮﻟﺪ ﺍﺫﺍ ﻋﻠﻢ ﺑﺎﻟﺴﻤﺎﻉ ﻓﺎﻥ ﺧﻼ ﻣﻨﻪ
ﻭﻋﻤﻞ ﻃﻌﺎﻣﺎ ﻓﻘﻂ ﻭﻧﻮﻯ ﺑﻪ ﺍﻟﻤﻮﻟﺪ ﻭﺩﻋﺎ
ﺍﻟﻴﻪ ﺍﻻ ﺧﻮﺍﻥ ﻭﺳﻠﻢ ﻣﻦ ﻛﻞ ﻣﺎ ﺗﻘﺪﻡ
ﺫﻛﺮﻩ ﻓﻬﻮ ﺑﺪﻋﺔ ﺑﻨﻔﺲ ﻧﻴﺘﻪ ﻓﻘﻂ ﻻﻥ ﺫﻟﻚ
ﺯﻳﺎﺩﺓ ﻓﻰ ﺍﻟﺪﻳﻦ ﻭﻟﻴﺲ ﻣﻦ ﻋﻤﻞ ﺍﻟﺴﻠﻒ
ﺍﻟﻤﺎﺿﻴﻦ ﻭ ﺍﺗﺒﺎﻉ ﺍﻟﺴﻠﻒ ﺍﻭﻟﻰ
অর্থাৎ, মানুষ যেসব বিদয়াত আবিস্কার করেছে তন্মধ্যে রবিউল আউয়াল মাসে মিলাদুন্নবী নামে যে অনুষ্ঠান করে এবং একে অনেক বড় ইবাদত এমনকি ইসলামী নিদর্শনাবলীর প্রদর্শনীও মনে করে। অথচ তা নানা রকম বিদয়াত আর হারাম কাজের সমষ্টিতে পরিণত হয়েছে। অতপর বলেন, এসব খারাবি মিলাদ মাহফীলের ক্ষেত্রে তখন ধর্তব্য হবে, যখন তাতে গান থাকবে। আর যদি এসব হারাম কাজ মুক্ত হয় এবং শুধু খাওয়া দাওয়ার আয়োজন করা হয়, আত্মীয় স্বজন দোস্ত আহবাবদের দাওয়াত করা হয়, আর নিয়ত করা হয় মিলাদ পালনের; তথাপি এ রকম নিয়তের কারণেই তা বিদয়াত হবে। কেননা এটা ধর্মের মধ্যে সংযোজন এবং পূর্বসূরী সলফের অনুসৃত কোনো তরিকা নয়। অথচ সলফের অনুসরনই শ্রেয়।”
{সূত্র মুদখাল ১/৮৫, রাহে সুন্নাত ১৬৪, আল-বালাগুল মুবীন
৪।
শায়খুল ইসলাম আল্লামা ইবনে তাইমিয়া রহঃ “সিরাতুল মুস্তাকিম” কিতাবে লিখেছেন
و كذا ما احدثه بعض الناس اما مضاهاة للنصاري في ميلاد عيسي عليه السلام و اما محبة للنبي صلعم و تعظيما له والله حثهم علي هذه المحبة و التعظيم باجتهاد في الاتباع لا علي البدع من اتخاذ مولد النبي صلعم عيدا مع اختلاف الناس في مولده فان هذا لم يفعله السلف مع قيام المقتضي له و عدم المانع منه الخ
অর্থাৎ এভাবে কিছু লোক মিলাদুন্নবী (নবীজির জন্মদিবস পালন) নামে যে বিদয়াতের জন্ম দিয়েছে এটা হযরত ঈসা আঃ এর জন্মোৎসব পালনে খৃষ্টানদের অনুকরণে হোক অথবা নবীপাক সাঃ এর মহব্বতে ও তাঁর তাজীমের নামে হোক; তা বিদয়াত। আল্লাহ তায়ালা রাসূল সাঃ এর অনুকরণ আর অনুসরণের মাধ্যমে তাঁর প্রতি মহব্বত ও তাজীমের প্রতি উদ্বুদ্ধ করেছেন, মিলাদুন্নবী পালনের ন্যায় বিদয়াতের মাধ্যমে নয়। অন্য দিকে তাঁর জন্ম তারিখ নিয়েও ইতিহাসবিদদের মধ্যে মতভেদ আছে।মহব্বত আর তাজীমের দাবি এবং প্রয়োজন আজ যেমন আছে, তেমনি সলফে সালেহিনদের যুগেও ছিল। তা সত্তেও তাঁরা এ কাজ করেননি। অথচ তাদের সামনে কোনো বাধাও ছিল না।
৫।
“যাদুল মাআদ” নামক কিতাবে আল্লামা ইবনুল কাইয়্যুম রহঃ লিখেছেন و لا يخص المكان الذي ابتدء فيه بالوحي و لا الزمان بشيئ، و من خص الامكنة و اللازمنة من عنده بعبادات لاجل هذا و امثال كان من جنس اهل الكتاب الذين جعلوا زمان احوال المسيح مواسم و اعيادا كيوم الميلاد و يوم التعبد و غير ذالك من الاحوال. كذا في البلاغ المبين
অর্থাৎ ওহীর সূচনা স্থল এবং সময়কে কোনো কাজের জন্য নির্দিষ্ট করবেনা, যদি কেউ স্থান সমূহকে নিজ পক্ষ হতে কোনো ইবাদতের জন্য নির্দিষ্ট করে ওহী বা সে জাতীয় কোনো নেয়ামতকে উপলক্ষ্য করে সে তখন আহলে কিতাবের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে, যারা হযরত মসীহ আঃ এর বিভিন্ন অবস্থার সময়কে মৌসুম ও ঈদ বানিয়ে নিয়েছে; যেমন তাঁর জন্ম দিবসকে তারা উৎসব দিবস এবং তাঁর ইবাদতের দিনকে ইবাদতের দিবস বানিয়ে নিয়েছে।” {সূত্র আল-বালাগুল মুবীন পৃ ৫}
৬।
আল্লামা শাহ আব্দুল আজিজ দেহলভি রহঃ “তোহফায়ে ইছনা আশারিয়া” কিতাবে লিখেছেন
و روز توالد و وفات هیچ نبی را عید قرار ندارند. البلاغ المبین ۶ অর্থাৎ কোনো নবীর জন্ম বা ওফাত দিবসকে আনন্দ উৎসবের উপলক্ষ্য বানানো স্বীকৃত নয়। {সূত্র আল-বালাগুল মুবীন পৃ ৬}।
৭।
আল্লামা ফাকেহানী রহঃ আল্লামা সুয়ূতী রহঃ এর প্রত্যুত্তরে যে কিতাবটি লিখেছিলেন তাতে তিনি লিখেছেন
تعظيم قدر النبي صلعم بوجه مشروع و معهود لا بكل وجه امر محمود، و ما عهدنا في مشروع ذالك العمل و ما امرنا بجمع الناس لاظهار الفرح و الاستبشار لمولد الاكمل.
অর্থাৎ “রাসূল সাঃ এর শান ও মান-মর্যাদার প্রকাশ যেন তেন পন্থায় নয়, বরং শরীয়ত অনুমোদিত পন্থায় হতে হবে।পক্ষান্তরে শরীয়তে এ আমল তথা মিলাদুন্নবী পালন পরিচিত নয়। আমাদের প্রতি রাসূল সাঃ এর জন্মোৎসব পালনের উদ্দেশ্যে লোক সমাগম করারও কোনো নির্দেশ নেই।”
৮।
“শরহে শিরআতুল ইসলাম” কিতাবে স্পষ্টাকারে উল্লেখ রয়েছে فاعلم ان من البدع المذمومة الشائعة في الامصار و البلاد مجلس مولد النبي صلعم لانه لم يثبت من الادلة الشرعية. اما عدم ثبوته من الكتاب و السنة فظاهر و اما من القياس فلان القياس المعتبر هو قياس المجتهدين بالشرائط المقررة في الاصول و لم يذهب المجتهدين الي اباحة فكيف يتصور اجتماعهم علي اباحته و استحسانه علي ان الاجتماع لابد له من سند و خلاف الواحد مانع كخلاف الاكثر و السند منتف ههنا و كثير من العلماء قد بالغوا في تقبيحه.
অর্থাৎ জেনে নাও যে, নিন্দনীয় বিদয়াতগুলোর একটি যা বিভিন্ন দেশ ও শহরে প্রসার লাভ করেছে, তা হল মিলাদুন্নবী তথা নবীজির জন্মদিন পালন। অথচ এটি শরীয়তের কোনো দলিল দ্বারা প্রমাণিত। কিতাবুল্লাহ এবং সুন্নাতে রাসূল দ্বারা প্রমাণিত না হওয়া তো সুবিদিত। কিয়াস দ্বারাও প্রমাণিত না। কেননা গ্রহণযোগ্য কিয়াস হচ্ছে মুজতাহিদদের কিয়াস। তাও শাস্ত্রীয় নীতিমালার শর্ত সাপেক্ষে হতে হবে।অনন্তর কোনো মুজতাহিদ এ বিদয়াত জায়েজ বলে মত দেননি। এবার বাকি থাকল ইজমার দলিল।
এখানেও মুজতাহিদদের দলিল গ্রহণযোগ্য নয়। অনন্তর কোনো মুজতাহিদ যখন এর জায়েজ হওয়ার পক্ষে গেছেন বলে প্রমাণিত না, তো কীভাবে এটি জায়েজ হওয়া কিংবা মুস্তাহসান হওয়ার ব্যাপারে ঐক্যমত হতে পারে? উপরন্তু ইজমার জন্যও সনদ থাকা আবশ্যক। ইজমার জন্য আরেক শর্ত হল কারো দ্বিমত না থাকা। কাজেই এক জন মুজতাহিদের দ্বিমত থাকলেও ইজমা প্রতিষ্ঠিত হবেনা, যেমনি ভাবে অধিকাংশের দ্বিমত থাকলে হয় না।অথচ এ (মিলাদ) ক্ষেত্রে ইজমার কোনো সনদই নেই। পরন্তু ইহার সূচনা থেকেই বহু আলেম এর বিরুধিতা করে আসছেন।”
৯।
হাম্বলী মাযহাবের বিশিষ্ট শায়খ আল্লামা শরফুদ্দিন রহঃ “সিয়ানাতুন্নাস” কিতাবে লিখেছেন ان ما يعمل بعض الامراء في كل سنة احتفالا لمولده عليه السلام مع اشتماله علي التكلفات الشنيعة بنفسه بدعة احدثها من يتبع هواه و لا يعلم ما امره صاحب الشريعة و نهاه. البلاغ المبين ٦ .
অর্থাৎ কতিপয় শাসক রাসূলেপাক ا সাঃ এর জন্মদিন (মিলাদ) উপলক্ষে নিন্দাযোগ্য জাঁকজমক আর আড়ম্বরতা শামিল করার মাধ্যমে প্রতি বৎসর যে অনুষ্ঠান করে, তা বিদয়াত। এমন সব লোক এটি আবিস্কার করেছে যারা নিজেদের প্রবৃত্তির অনুসারি (মনপূঁজারী)। রাসূলেপাক সাঃ কী আদেশ করেছেন, কী নিষেধ করেছেন; সে খবরও যাদের নেই।” {সূত্র আল-বালাগুল মুবীন পৃ ৬}
১০।
বিশিষ্ট ফকিহ আল্লামা কাজী সিহাব উদ্দিন দৌলতাবাদি রহঃ এর কিতাব “তুহফাতুল কোযাত” এর মধ্যে উল্লেখ রয়েছে سئل القاضي عن المجلس المولد الشريف قال لا ينعقد لانه محدث و كل محدث ضلالة و كل ضلالة في النار. و ما يفعل الجهال علي رأس كل حول في شهر ربيع الاول ليس بشيئ يقومون عند ذكر مولده عليه وسلم و يزعمون ان روحه عليه السلام يجيئ، فزعمهم باطل بل هذا الاعتقاد شرك و قد منع الائمة عن مثل هذا. البلاغ المبين ٦، البيان الفاصل ٧.
অর্থাৎ (কেউ প্রশ্ন করল) রাসূল সাঃ জন্মদিনের অনুষ্ঠান তথা মিলাদুন্নবীর অনুষ্ঠান করা যাবে কিনা? প্রত্যুত্তরে কাজী সাহেব জবাব দিয়েছেন, না; করা যাবেনা। কেননা তা (ধর্মের নামে) নতুন আবিস্কার। পক্ষান্তরে প্রত্যেক নতুন আবিস্কার গোমরাহী।আর সব গোমরাহীর পরিণতি জাহান্নাম। প্রতি বৎসর রবিউল আউয়াল মাসে জাহেল লোকেরা যা করে তা কিছুইনা। তারা রাসূল সাঃ এর জন্মের আলোচনা শুনে দাঁড়িয়ে যায় আর বিশ্বাস করে যে, তাঁর পবিত্র রূহ তথায় উপস্থিত।তাদের ধারণা বাতিল বরং এরূপ বিশ্বাসকরা শিরিক। ইমামগণ এ জাতীয় বিশ্বাস পোষণ করতে নিষেধ করেছেন।” {সূত্র আল-বালাগুল মুবীন ৬, আল-বয়ানুল ফাসিল ৭৪}।
১১।
আল্লামা আহমদ ইবনে মুহাম্মদ মিসরী মালেকী (রহঃ) লিখেন-
ﻗﺪ ﺍﺗﻔﻖ ﻋﻠﻤﺎﺀ ﺍﻟﻤﺬﺍﻫﺐ ﺍﻻﺭﺑﻌﺔ ﺑﺬﻡ ﻫﺬﺍ ﺍﻟﻌﻤﻞ
– ﺭﺍﻩ ﺳﻨﺔ ﺍﺯ ﺍﻟﻘﻮﻝ ﺍﻟﻤﻌﺘﻤﺪ ﻓﻰ ﻋﻤﻞ ﺍﻟﻤﻮﻟﺪ
অর্থাৎ, মাযহাব চতুষ্ঠয়ের উলামায়ে কেরাম এই কাজ (মীলাদ) নিন্দনীয় হওয়ার ব্যাপারে ঐক্যবদ্ধ ।
১২।
মুজাদ্দিদে আলফেছানী শায়খ আহমদ সিরহিন্দী রহঃ মাকতুবাত কিতাব লিখেছেন بنظر انصاف می بینید اگر حضرت ایشاں فرضا دریں زمانہ موجود بودند و در دنیا زندہ بودند و ایں مجالس و اجتماع کہ منعقد می شود آیا بریں راضی می شدید و ایں اجتماع را پسندیدند، یا نہ ؟ یقین فقیر آں ست کہ ہرگز ایں معنی را تجویز نمی فرمودند بلکہ انکار می نمودند.
অর্থাৎ ইনসাফের নজরে দেখুন! হযরাত সাহাবায়ে কেরাম ও সালফে সালেহীনগণ যদি এ যুগে থাকতেন বা জীবিত হতেন আর বর্তমানকালে (মিলাদুন্নবী, ওরশ ইত্যাদি) অনুষ্ঠিত সমাবেশগুলো দেখতেন, তাতে কি তাঁরা সন্তুষ্ট থাকতেন? পছন্দ করতেন? নিষেধ করতেন না? অধমের (শায়খ সিরহিন্দী) দৃঢ় বিশ্বাস যে, কখনো তাঁরা এসব কার্যকলাপকে বৈধতা দিতেন না। বরং অস্বীকার করতেন।”
{সূত্র মাকতুবাত ৫/২২, আল-বয়ানুল ফাসিল পৃ ৭৪, রাহে সুন্নাত ১৭৪}।
১৩।
আল্লামা আলা উদ্দিন বিন ইসমাঈল আশ-শাফেয়ী রহঃ “শরহে বা’আছে ওয়ান-নুশূর” কিতাবে লিখেছেন ما یحتفل لمولدہ علیه السلام بدعة يذم فاعلها. تاريخ ميلاد.
অর্থাৎ মিলাদের নামে যে মাহফীল করা হয় তা বিদয়াত বা কুসংস্কার।যারা এটা করে তারা তিরস্কার যোগ্য। {সূত্র তারীখে মিলাদ}
১৪।
হাফেজ আবু বকর বিন আব্দুলগণী বাগদাদী আল-হানাফী রহঃ যিনি ইবনে নোকতা নামে পরিচিত। তিনি তাঁর ফতুয়ার কিতাবে লিখেছেন
ان عمل المولد لم ينقل عن السلف و لا خير فيما لم يعمل السلف. অর্থাৎ মিলাদুন্নবীর আমলটি সলফ (পূর্ববতী গ্রহণযোগ্য তিনযুগ) থেকে বর্ণিত নয়।আর সলফ যে কাজ করেননি তাতে কোনো কল্যাণ নেই।”
১৫।
যখীরাতুস সালেকীন কিতাবে আছে چیزیکہ نام آں مولد می نامند بدعت ست چہ رسول اللہ صلی اللہ علیہ و سلم ہیچ کس را باین نہ فرمودہ و نہ خلفاۓ او و نہ ائمہ او و نہ خود ایں فعل کردہ اند. অর্থাৎ মানুষ যে আমলটিকে মিলাদুন্নবী নাম রেখেছে, সেটি বিদয়াত। কেননা রাসূল সাঃ কাউকে এ কাজের আদেশ দেননি, খালিফাগণও দেননি, ইমামগণও দেননি। আর না তিনি নিজে এ কাজ করেছেন।”
{তারিখে মিলাদ দ্রষ্টব্য}
১৬।
হানাফী মাযহাবের খাতেমুল ফোকাহা, সবার নিকট বরেণ্য ও নির্ভরযোগ্য আল্লামা ইবনে আবেদীন শামী রহঃ লিখেছেন و اقبح منه النذر بقرأة المولد في المنابر مع اشتماله علي الغناء و اللعب و ايهاب ثواب ذالك الي حضرة المصطفي. فتاوي شامي ٢/١٢٨، مطبوعة مكتبة نعمانية ديوبند.
অর্থাৎ এর চেয়ে জঘন্য হল মঞ্চ ও মিম্বরে মিলাদুন্নবী পাঠের মান্নত করা এবং এর সাওয়াব রাসূল সাঃ এর দরবারে পৌঁছানো।অথচ তাতে গান বাদ্য খেলাধুলা ইত্যাদিও শামিল রয়েছে।” {ফতুয়ায়ে শামী ২য় খণ্ড, ১২৮ পৃষ্ঠা।}
১৭।
আল্লামা হাসান বিন আলী রহঃ লিখেছেন ما احدثه الصوفية الجهلة من مجلسه المولد في شهر ربيع الاول لا اصل له في الشرع بل هو بدعة مذمومة. كتاب الطريقة في رد عمل البدعة.
অর্থাৎ জাহেল সূফীগণ রবিউল আউয়াল মাসে মিলাদুন্নবী নামে যে অনুষ্ঠান আবিষ্কার করেছে শরীয়তে তার কোনো ভিত্তি নেই।বরং তা নিন্দনীয় ও বিদয়াত।” {সূত্র কিতাবুত তরিকাহ ফি রদ্দে আমালিল বিদয়াহ}
১৮।
আল্লামা আবুল কাসেম আব্দুর রহমান বিন আব্দুল হামিদ মালেকী রহঃ লিখেছেন ما يهتم بعمل المولد في ربيع الاول فيليق ان ينكر علي من يهتم به. تكملة التفاسير
অর্থাৎ রবিউল আউয়াল মাসে মিলাদের আমল নামে যে আয়োজন করা হয়, তার আয়োজকের প্রতি ইনকার বা অনাস্থা জাহির করা বাঞ্চনীয়।” {সূত্র তাকমালাতু তাফসীর}।
১৯।
আল্লামা মুহাম্মদ বিন আবু বকর মাখযুমী রহঃ “কিতাবুল বিদয়ে ওয়াল হাওয়াদিস” গ্রন্থে লিখেছেন و من المنكرات القبيحة و المكروهات الفضيحة في هذه الاعصار ما يعمل بمولد النبي عليه السلام في بعض الاعصار و ما هلك امة من امم المرسلين الا بالابتداع في الدين. القول المعتمد
অর্থাৎ হাল যামানার কোনো কোনো শহরে মিলাদুন্নবী নামে যে সব অনুষ্ঠান হচ্ছে তা কদাকার অসৎকাজ এবং নির্লজ্জজনক মাকরূহ।পূর্ববর্তী কোনো উম্মত ধ্বংস হয়নি, যে যাবত তারা ধর্মে বিদয়াত আবিস্কার করেনি।” {সূত্র আল-কাওলুল মু’তামাদ}
২০।
প্রসিদ্ধ কিতাব “শরহে মাওয়াহিবে লুদূনিয়া” কিতাবে লেখা আছে و لقد نص الشارع علي فضيلة ليلة القدر و لم يتعرض لليلة مولده و لا لامثالها بالتفضيل دليلا فوجب علينا ان نقتصر علي ما جاء منه و لا نبتدع شيئا.
অর্থাৎ রাসূল সাঃ শবে কদরের ফজিলতের দলিল তো দ্ব্যার্থহীনভাবে বর্ণনা করেছেন, অথচ তাঁর জন্ম রজনী বা এ জাতীয় দিবসগুলোর ফজিলত সম্বন্ধে কোনো বর্ণনা দেননি।সুতরাং শরিয়তে যতটুকু এসেছে ততটুকুর ওপর সীমাবদ্ধ থাকা আমাদের জন্য ওয়াজিব, নতুন কিছু আবিস্কার করা নয়।”
২১।
আল্লামা আহমদ বিন হাসান রহঃ তার মালফূজাত কিতাবে লিখেছেন ان هذا العمل لم ينقل عن السلف و لا خير فيما لم ينقل عن السلف. মিলাদুন্নবী নামক এ আমল সলফ হতে বর্ণিত নয়।অনন্তর সলফ হতে যা বর্ণিত নয় তাতে কোনো কল্যাণ নেই।”
২২।
“জামেউল মাসায়েল” নামক কিতাবে লেখা আছে
ان عمل الولد لم ينقل عن السلف الصالح و انما احدث بعد القرون الثلاثة في الزمان الطالح و نحن لا نتبع الخلف فيما اعمل السلف لانه يكفي بهم الاتباع فاي حاجة الي الابتداع.
অর্থাৎ মিলাদী আমল সালফে সালেহীন হতে বর্ণিত নাই, বরং মন্দ লোকদের যুগে আবিস্কৃত।পক্ষান্তরে সলফে সালেহীন (পূর্ববতী তিন স্বর্ণ যুগের বিশিষ্ট মুসলিমগণ) যে কাজ করেননি পরবর্তীদের অনুসরণে আমরা সে কাজ করতে পারিনা।কেননা সলফে সালেহীনের অনুসরণই আমাদের জন্য যথেষ্ট, নতুন করে আবিস্কার করার দরকার কী?
২৩।
শায়খ আব্দুল হক মুহাদ্দিস দেহলবী রহঃ “মা সাবাতা বিচ্ছুন্নাত” কিতাবে মিলাদী আমলের বিরুধিতা করার কারণে আল্লামা ইবনুল হাজ্জ রহঃ এর প্রশংসা করে বলেন
و قد اطنب ابن الحاج في “المدخل” في الانكار علي ما احدثه الناس من البدع و الاهواء و الغناء بالالات المحرمة عند عمل المولد الشريف فان الله يثيبه علي قصد الجميل و يسلك بنا سبيل السنة.
অর্থাৎ ইবনুল হাজ্জ ‘মুদখাল’ কিতাবে মানব রচিত মিলাদী অনুষ্ঠান ও তার অভ্যন্তরে মানুষ যে সব গান বাদ্য আমোদ প্রমোদের প্রবর্তন করেছে তার প্রতিবাদ ও নিন্দায় দীর্ঘ আলোচনা করেছেন। আল্লাহপাক তাঁর সদিচ্ছার প্রতিদান দিন। আর আমাদেরকে সুন্নতের পথে পরিচালিত করুন।”
উপসংহার, দীর্ঘ আলোচনা দ্বারা যাহা প্রতীয়মাণ হয়েছে তা হল, মিলাদুন্নবী তথা নবীজির জন্মদিন পালনকরার প্রচলিত প্রথা সম্পূর্ণ নতুন আবিস্কৃত একটি আমল।ইসলামধর্মে নব্য অনুপ্রবেশকারী একটি বিদয়াতি কাজ।যার সাথে সলফে সালেহীনের কোনো সম্পর্ক নেই।
৬০৪ হিজরীতে জনৈক জাহিল বাদশাহ কর্তৃক তার সূচনা হবার পর থেকে প্রত্যেক যুগেই হক্কানী আহলে সুন্নাহ’র আলেমগণ এর বিরুধিতা করেছেন। যেহেতু এটি ইসলামধর্মে খ্রিষ্টান জাতির বড়দিন প্রথার এক জঘন্যতম নব সংস্করণ। অনন্তর সময়ের বিবর্তনে তার ভেতর আরো নানা অধর্ম আকিদা বিশ্বাসের গোড়াপত্তন হয়েছে। ফলে মিলাদী আমলটি অন্ধ আর বধির থেকে এখন পুরোপুরি বিকলাঙ্গ রুগীতে পরিণত হয়েছে।
বর্তমানেও মিলাদী আমলের বিরুধিতা থেমেনি। কিন্তু যেখানে এর বিরুধিতা গত আটশত বছর অব্দি চলে আসছে, সেখানে কতিপয় লোক কথায় কথায় এর বিরুধিতাকারীদের দেওবন্দী, আহলে হাদিস কিংবা কথিত ওহাবী বলে তালসামলানোর চেষ্টা করছে। অথচ দেওবন্দ মাদরাসার প্রতিষ্ঠা হয়েছে ১৮৬৬ সালে এবং কথিত ওহাবী আন্দোলনের প্রধান শায়খ মুহাম্মদ রহঃ এর সময়কাল ছিল ১৭০৩-১৭৮৬ খ্রিঃ। এমতাবস্থায় যারা শুরু থেকে মিলাদী প্রথার বিরুধিতা করেছেন, তাঁরাও কি দেওবন্দী বা কথিত ওহাবী ছিল? কী বলবেন?

Advertisements
Categories: Uncategorized | Leave a comment

Post navigation

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

Blog at WordPress.com.

%d bloggers like this: